আজ ২৮শে সেপ্টেম্বর, ২০২২, রাত ১২:০৬

কে হচ্ছেন নৌকার মাঝি সৎ ও যোগ্য প্রতিনিধি চায় সাধারণ মানুষ।

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin

নেকবর হোসেন কুমিল্লা প্রতিনিধি।

কুমিল্লা ৭ (চান্দিনা) আসনের উপ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর থেকে নির্বাচন নিয়ে সাধারণ মানুষের মনে উৎসাহ-উদ্দীপনা বিরাজ করছে। ২০ দলীয় জোট নির্বাচনে অংশ নেয়ার কোন সম্ভাবনা না থাকায় আওয়ামীলীগ প্রার্থী নিয়েই আলোচনা চলছে মাঠে ময়দানে। উপজেলা শহর থেকে গ্রামে-গঞ্জে চায়ের আড্ডায় উঠে আসছে নির্বাচনের খবর। সৎ ও যোগ্য প্রতিনিধি নির্বাচন করতে চায় সাধারণ মানুষ।

এই আসনে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) এর মাধ্যমে আগামী ৭ অক্টোবর ভোট গ্রহণ করার কথা রয়েছে। এদিকে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের মধ্যে দেখা দিয়েছে আনন্দ-উচ্ছ¡াস। দলীয় মনোনয়ন কে পাবেন, তা নিয়ে চলছে নানা আলোচনা। নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন পেতে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশীরা দৌড়ঝাঁপ শুরু করেছেন। দলের কেন্দ্রীয় নেতাদের সাথে নৌকা প্রতীক পাওয়ার বিষয়ে লবিং চালিয়ে যাচ্ছেন তারা।

এ উপনির্বাচন নিয়ে বিরোধী জোটে কোনো আলোচনা বা তৎপরতা নেই। বিএনপির নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের প্রার্থীরা একেবারেই চুপচাপ রয়েছেন। দলীয় সিদ্ধান্তের কারণে শেষ পর্যন্ত এ উপ-নির্বাচন নিয়ে বিরোধী জোটের কোনো প্রার্থী অংশ নিচ্ছেন না বলে জানিয়েছেন কুমিল্লা উত্তর জেলা ২০ দলীয় জোটের সদস্য সচিব মাওলানা সৈয়দ আবদুল কাদের জামাল।

এ নির্বাচনে জাতীয় পার্টির একক প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে প্রতিদ্ব›িদ্বতা করবেন দলের কেন্দ্রীয় কমিটির ভাইস- চেয়ারম্যান ও কুমিল্লা উত্তর জেলার আহŸায়ক মো. লুৎফুর রেজা খোকন।

আওয়ামী লীগ সূত্রে জানা যায়, বুধবার (৮ সেপ্টেম্বর) পর্যন্ত দলীয় মনোনয়ন সংগ্রহ করেছেন ৭ জন প্রার্থী। এরা হলেন- বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য ও কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি অধ্যাপক ডা. প্রাণ গোপাল দত্ত, প্রয়াত অধ্যাপক মো. আলী আশরাফ এমপির ছেলে চান্দিনা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআইয়ের সাবেক সিনিয়র সহ-সভাপতি মুনতাকিম আশরাফ টিটু, কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের।

যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মো. সহিদ উল্লাহ, চান্দিনা উপজেলা যুবলীগের সাবেক প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক ও জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য ব্যবসায়ী জাকির হোসেন আজাদ, চান্দিনা উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মো. নাজমুল আহসান মজুমদার রিপন, কুমিল্লা উত্তর জেলা যুব মহিলা লীগের যুগ্ম আহŸায়ক নাজনীন আক্তার ও চান্দিনা উপজেলা কৃষকলীগের আইন বিষয়ক সম্পাদক শাহজালাল মিঞা শিপন। সম্ভাব্য প্রার্থীদের সবাই বলছেন, দলের সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যাকে মনোনয়ন দেবেন, সবাই তার পক্ষেই কাজ করবেন।

এদিকে, ৭ প্রার্থীর মধ্যে আলোচনায় রয়েছেন তিন প্রার্থী। নানা কারণে অনেকেই মনে করছেন অধ্যাপক ডা. প্রাণ গোপাল দত্ত, মুনতাকিম আশরাফ টিটু অথবা মো. সহিদ উল্লাহ আওয়ামীলীগের টিকেট পেতে পারেন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তাদের সমর্থকরা নৌকা প্রতীক পাওয়ার বিষয়ে নিজেদের মতো করে নিশ্চয়তা প্রদান করছেন। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ডা. প্রাণ গোপাল এর পক্ষে মাঠে জোয়ার সৃষ্টি হয়েছিলো। কিন্তু শেষ পর্যন্ত তিনি দলীয় মনোনয়ন পাননি। এবার নিরবেই কাজ করে যাচ্ছেন তার নেতাকর্মী ও সমর্থকরা।

অপরদিকে, গত ৪ সেপ্টেম্বর উপজেলা আওয়ামীলীগের বর্ধিত সভায় একক প্রার্থী প্রস্তাবনা করে দলের নেতৃবৃন্দ। তারা চান্দিনা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআইয়ের সাবেক সিনিয়র সহ-সভাপতি মুনতাকিম আশরাফ টিটু’র নাম প্রস্তাবনা করে একক প্রার্থী হিসেবে দলীয় প্যাডে লিখিত ভাবে জেলা আওয়ামীলীগের মাধ্যমে দলটির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে প্রেরণ করেন। এতে ১৩টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভার আওয়ামীলীগ ও দলের অঙ্গ ও সহযোগী।

সংগঠনও তাকে সমর্থন দিয়েছে বলে উল্লেখ করা হয়। মুনতাকিম আশরাফ ২০১৩ সালে কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। বর্তমানে তিনি জেলা আওয়ামীলীগের সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। তিনি আওয়ামীলীগ সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রীর সফর সঙ্গী হিসেবে বিভিন্ন দেশে ২০টিরও বেশি গুরুত্বপূর্ণ রাষ্ট্রীয় সফরে দেশের ব্যবসায়ীদের প্রতিনিধিত্ব করেন।

এছাড়া আলোচনায় রয়েছেন কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মো. সহিদ উল্লাহ। তিনি ২০০৮ এবং ২০১৪ সালের জাতীয় নির্বাচনের আগে আওয়ামীলীগের দলীয় মনোনয়ন চেয়েছিলেন। সহিদ উল্লাহ্ চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়ণরত অবস্থায় স্যার এ.এফ.রহমান হল ছাত্রলীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক এর দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৮১ সালে তিনি চাকসু নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করেন। ওই সময়ে শিবিরের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান নেওয়ায় একাধিকবার শিবির ক্যাডারদের হামলার শিকার হন তিনি। সক্রিয় ছাত্রলীগ কর্মী হিসেবে তিনি স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলন করেন। ১৯৯০ সালে তিনি চান্দিনা উপজেলা আওয়ামীলীগের সদস্য হন।

ভোটারদের সাথে কথা বলে জানা যায়, চান্দিনা উপজেলায় মাদক নিমূল একটি বড় চ্যালেঞ্জ। সন্ত্রাস-চাঁদাবাজদের দৌরাত্ম্য ঠেকাতে এই আসনে একজন সৎ, নিষ্ঠাবান ও যোগ্য প্রতিনিধি নির্বাচিত করতে চান তারা।

চান্দিনা পৌরসভার বেলাশ্বর গ্রামের মো. দেলোয়ার হোসেন বলেন- ‘প্রয়াত সংসদ সদস্য অধ্যাপক আলী আশরাফ একজন ভালো মানুষ ছিলেন। উনার স্থানে আমরা একজন সৎ প্রার্থী চাই। যিনি চান্দিনার মানুষের সুখে-দুঃখে পাশে থাকবেন।’

কাপড় ব্যবসায়ী বিজয় কৃষ্ণ দত্ত বলেন- ‘আমি চাই সুষ্ঠু ভাবে ব্যবসা পরিচালনা করতে। এমন একজন এম.পি নির্বাচিত হোক যিনি ব্যবসার সুষ্ঠু পরিবেশ নিশ্চিত করবেন। চাঁদাবাজদের দৌরাত্ম্য বন্ধ করবেন।’

কীটনাশক ব্যবসায়ী হাজী মো. শামীম হোসেন বলেন- ‘এই আসনে একজন ভালো মানুষ নির্বাচিত করতে চাই। যিনি দলমত নির্বিশেষে মানুষের বিপদে-আপদে পাশে থাকবেন।’

কুমিল্লা-৭ (চান্দিনা) আসনটি বিভিন্ন কারণে আলোচিত এবং গুরুত্বপূর্ণ। সপরিবারে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হত্যাকাÐের মৃত্যুদÐপ্রাপ্ত আসামি কর্নেল (বরখাস্ত) খন্দকার আবদুর রশিদের বাড়ি এখানে। পলাতক ওই আসামীকে গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ। এ আসন থেকে তিনি ফ্রিডম পার্টির প্রার

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin

আরো পড়ুন

সর্বশেষ খবর

পুরাতন খবর

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০