আজ ২৮শে সেপ্টেম্বর, ২০২২, রাত ১২:৩৯

ময়মনসিংহে পুলিশ কনস্টেবল পদে নিয়োগ বানিজ্যের অভিযোগে ৩ প্রতারক গ্রেফতার।

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin

রফিকুল ইসলাম।

ট্রেইনি রিক্রুট কনস্টেবল পদের নিয়োগ বিজ্ঞপ্তির পর থেকেই বাংলাদেশ পুলিশ প্রতিনিয়ত নিয়োগ প্রত্যাশী প্রার্থীদের নানা তথ্য দিয়ে সহযোগিতা করে আসছে।তারই অংশ হিসেবে ময়মনসিংহ জেলা পুলিশও সার্বিক সহযোগিতা করে আসছে।ময়মনসিংহে ট্রেইনি রিক্রুট কনস্টেবল নিয়োগে সাধারণ প্রার্থী যেন প্রতারণা, হয়রানি, ভুয়া প্রার্থী ও নিয়োগ বানিজ্যের মাধ্যমে দুর্নীতি না করতে পারে সেদিকে সজাগ দৃষ্টি রেখেছে।তারই অংশ হিসেবে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ময়মনসিংহ জেলা গোয়েন্দা শাখা (ডিবি) ৩ প্রতারক কে গ্রেফতার করে।

এ বিষয়ে অফিসার ইনচার্জ সফিকুল ইসলাম জানান, পুলিশ সুপার মোহাঃ আহমার উজ্জামান পিপিএম সেবা’র দিকনির্দেশনায় ময়মনসিংহ জেলা গোয়েন্দা শাখা সকল প্রকার অনিয়ম,অপরাধ, প্রতারণা ও জনসাধারণের সার্বিক নিরাপত্তায় কাজ করে আসছি।তারই প্রেক্ষিতে ২৫ অক্টোবর, ২০২১ ইং, সোমবার, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বিভিন্ন এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে ৩ প্রতারককে গ্রেফতার করে।

তারা হল- ১- মোঃ ছামিউল আলম (৬৬), পিতা- মৃত বজলুর রহমান, পো- বেলতলী বাজার, থানা- মেলান্দহ, জেলা- ময়মনসিংহ,এই প্রতারক অতিরিক্ত সচিব ও ডিআইজি ভুয়া পরিচয়ে তিন জনকে পুলিশ কনস্টেবল পদে নিয়োগ দিতে পুলিশ সুপারের কাছে মোবাইলে সুপারিশ করে।২- মোঃ জালাল উদ্দীন(৭৫), পিতা- মৃত হানিফ উদ্দিন, মাতা- মানিকজান, সাং- কুড়িপাড়া, থানা- ফুলপুর, জেলা- ময়মনসিংহ,এই প্রতারক কনস্টেবল নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের পর থেকে অনলাইনে আবেদন কারীদের চাকুরী পাইয়ে দেওয়ার আশ্বাসে।

এলাকার রফিকুল ইসলাম ও আঃ কাদির কে চাকুরী পাইয়ে দিতে অগ্রিম ৫০ হাজার টাকা হাতিয়ে নেয়।পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে সে জানায় কামরুল হাসান নামে পুলিশের উর্ধতন কর্মকর্তাদের সাথে যোগাযোগ করে চাকুরী দিতে পারবে বলে পাঁচজন প্রার্থী সংগ্রহ করে এবং তাদের ঢাকা উত্তরায় নিয়ে ডাক্তারি পরীক্ষাও সম্পন্ন করে।ঐ ব্যক্তি প্রার্থী দের সাথে ডি আই জি পরিচয়ে কথা বলে। ৩- মোঃ মারুফ মিয়া(১৯), পিতা- মোঃ ছোরহাফ আলী, মাতা- মোঃ মাহমুদা খাতুন।

সাং- রহিমবাড়ী, থানা- মুক্তাগাছা, জেলা- ময়মনসিংহ, এই প্রতারক ভূয়া প্রবেশপত্র তৈরী করে নিয়োগ বোর্ডে গেলে প্রবেশপত্র ভূয়া হিসেবে ধরা পরে,তার দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে ভূয়া প্রবেশপত্র তৈরীকারী হামিদুল ইসলামের ব্যবহৃত কম্পিউটার জব্দ করা হয়।
তিনি আরো জানান, প্রতারক চক্রের অন্যান্যদের গ্রেফতারে অভিযান চলছে।এসকল প্রতারকের বিরুদ্ধে পৃথক মামলা হয়েছে এবং মঙ্গলবার তাদেরকে আদালতে পাঠানো হয়েছে।

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin

আরো পড়ুন

সর্বশেষ খবর

পুরাতন খবর

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০